জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সরকারি বৃত্তি নিয়ে বিদেশে স্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজিসে পড়াশুনা

মাহতাব অ্যাজমাইন রিফাতে সরকারি বৃত্তি অর্জন

493

সরকারি বৃত্তি নিয়ে আল ফারাবি কাজাক ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি , কাজাখস্তান এ স্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজিতে পড়াশুনা করতে যাচ্ছেন মাহাতাব আজমাইন রিফাত।  বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষে পড়াকালীন সময় তিনি এই বৃত্তির জন্য মনোনীত হয়েছেন।

মাহতাব অ্যাজমাইন রিফাতের সাক্ষাৎকার :

বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় পড়াকালীন সময়ে আপনি কিভাবে এই  বৃত্তিটি লাভ করলেন?

ছোট বেলা থেকে ভালো ছাত্র হবার সুবাধে এসএসসি ও এইচসসিতে জিপিএ ৫ পেয়েছিলাম।কিন্তু এই জিপিএ ৫ এর শেষ কোথায় ? ভালো ছাত্র ছিলাম বলে সবাই ভেবেছিল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় চান্স পেয়ে যাব,কিন্তু কোথাও হলো না।তারপর ইয়ার গ্যাপ দিয়ে শুরু করলাম বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি যুদ্ধের প্রস্তুতি।তখন আমি একটা মেডিকেল প্রস্তুতির একটা মেসেঞ্জার গ্রুপে অ্যাড ছিলাম।সেইখানে আমার বেশ কিছু বন্ধু মহলের সাথে পরিচয় হয়। তারমধ্যে কিছু বন্ধু বিদেশে উচ্চশিক্ষা নিয়ে আলাপ করতো।আসলে মূলত গল্পটার শুরু এখান থেকে- তাদের কাছ থেকে উৎসাহ পেয়ে বিদেশে উচ্চশিক্ষার যাত্রা শুরু করি সময়টা ছিল ২০২০ সাল।

ঠিক তখন ঐভাবে আমি বিদেশ উচ্চ শিক্ষার জন্য যেসব ডকুমেন্টস লাগে জোগাড় করতে পারি নি।তবে আমার মাঝে ছিল প্রবল ইচ্ছা শক্তি কঠোর পরিশ্রম। আমি লেগে পড়লাম সব গোছানো আর রিসার্চ করে সেই সব শিক্ষাবৃত্তি গুলোতে আবেদন করা শুরু করি।বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি যুদ্ধ শেষে কোথাও চান্স না পেয়ে আমার ঠাই হলো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে। অনেক ভালো প্রস্তুতি নিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম বর্ষ ফাইনাল পরীক্ষা দিলাম কিন্তু আশানুরূপ ফলাফল করতে পারলাম না। এরপর থেকে আমার অনেকটাই মন ভেঙে গিয়ে বাইরে পড়াশোনা করার প্রতি আরো দৃঢ় মনবল তৈরি হয়েছে।

মূলত সরকারি স্কলারশিপ গুলোতে নিজে নিজে ঘরে বসে আবেদন করা শুরু করি। সর্বপ্রথম আমি তুর্কি সরকারি স্কলারশিপ আবেদন করি কিন্তু সেইটাই আমি সফল হয় নি।তারপরও আমি দমে যায় নি কারন আমি মনে মনে প্রতিজ্ঞা করেছিলাম যে আমার একটা স্কলারশিপ ম্যানেজ করতেই হবে আমাকে বিদেশ উচ্চ শিক্ষার জন্য যেতেই হবে।তারপর আমি সব সরকারি বেসরকারি স্কলারশিপ গুলোতে আবেদন করতাম। আমি মনে ভাবতাম হোক বা না হোক আবেদন করব আমি।তারপর একে একে পাসপোর্ট,জন্ম নিবন্ধন, এন আই ডি, Recommendation letter, SOP জোগাড় করতে থাকি।এইখানে বলে রাখা ভালো যে LOR,SOP এই গুলো আমি অনেক ভাইয়া আপুদের কাছ থেকে জোগাড় করে আইডিয়া নিয়ে নিজের মতো করে লিখতাম।একে একে যখন অনেকগুলো স্কলারশিপ আবেদন করে ফলাফল পাচ্ছি না রিজেক্ট খাচ্ছিলাম। আর খুজছিলাম কি কারনে রিজেক্ট হচ্ছে কি ইমপ্রুভমেন্ট করা দরকার।নিজেকে আরও প্রস্তত করছিলাম।যেহেতু সবার কাছে শুনেছিলাম বাইরে যেতে হলে নাকি ECA ভূমিকা অনেক।যেই ভাবা সেই কাজ নেমে গেলাম বিভিন্ন অর্গানাইজেশনে ক্যাম্পাস এম্বাসেডর ,ভলেন্টিয়ার এর কাজ সেই সাথে ইন্টার্নশিপ ও করছিলাম বেশ কয়েকটা।বেশ ভালই সার্টিফিকেট অর্জন করলাম। এছাড়া ফ্রিল্যান্সিং টা শিখে রেখেছিলাম।ড্রাইভিং টা শিখেছিলাম কারন যেহেতু বাইরে যাব বলে।তারপর ফিনল্যান্ড আবেদন করি সেখানেও রিজেক্ট খাই।মালেশিয়ার আলবুখারিতে আবেদন করি সেখানেও কি কারনে জানি রিজেক্ট করল বুজলাম না।তারপর ইন্দোনেশিয়ার সোরাবায়ে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার অফার লেটার পাই।তারপর Study in india থেকে অফার লেটার পাই।আর অবশেষে আমি কাজাখস্তান সরকারি স্কলারশিপে আবেদন করি।এইখানে আবেদন প্রক্রিয়া ছিল একদম সোজা জাস্ট ডকুমেন্টগুলো সাবমিট করা। আগেই বলেছিলাম আমার কাছে সব ডকুমেন্টস জোগাড় করা ছিল তাই কস্ট করতে হয় নি।আবেদন করার পর এইখানে ২ টা ধাপ ছিল।১) সাইকোলজি টেস্ট ২) ইন্টারভিউ। আল্লাহর রহমতে আমি সাইকোলজি টেস্ট পাস করি।তারপর আসে ইন্টারভিউ মেইল।ইন্টারভিউ এর ব্যাপারে একটু বলি যেহেতু অনেক স্কলারশিপ এ আমি আবেদন করেছি ইন্টারভিউ দিয়েছি মোটামুটি একটা অভিজ্ঞতা হয়ে গিয়েছিল ইন্টারভিউতে কি রকম প্রশ্ন হতে পারে নিজেকে কি রকম কনফিডেন্ট রাখতে হয়। নিজেকে সেই ভাবে প্রস্তুত করে গেলাম ইন্টারভিউ বোর্ডে।যদিও ইন্টারভিউ টি হয়েছিল অনলাইনে।আমার ইন্টারভিউ বোর্ড একজন ম্যাডাম ছিল উনি বন্ধুসুলভ ও হাসি খুশি ছিলেন।আমাকে বেশ নরমাল প্রশ্ন করেছিল।আমি ঠিকঠাক মত উত্তর দিয়েছিলাম।আর দীর্ঘ দুমাস পর আমার কাঙ্খিত স্কলারশিপ টি পেলাম,তাও আবার আমার পছন্দের Space Engineering And Technologies সাবজেক্টের উপর।

আপনি কোন ওয়েবসাইট থেকে এই বৃত্তির জন্য আবেদন করেছিলেন?

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয় https://www.shed.gov.bd/?fbclid=IwAR0hQMSoYLD6kEGjxlvGNGRaiAMSJ92azaPkxd-sHZo-ur0gMcvDl6l3fWs

আরো দেখতে পারেন https://enic-kazakhstan.edu.kz/en/post/94?fbclid=IwAR3U26wJY6RpM8zg-nns6DrDjJKwUzTgX9baNAZDW6WhNelGtayrwhoIxpg

যারা আপনার মত বৃত্তি পেতে চায় তাদের জন্য কিছু বলুন!

সবশেষ একটা কথাই বলব ,নিজের ইচ্ছা শক্তি,সাহস পরিশ্রম করতে পারলেই সব সম্ভব,নিজের পথ নিজেকেই খুজে নিতে হবে।আমার জন্য দোয়া করবেন ,আর সবার জন্য শুভ কামনা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here